Wednesday, December 12, 2018

বার্সেলোনার মালিকানা হারাতে চলেছে স্পেন ?

বার্সেলোনা: স্পেনের মানচিত্রে কি পরিবর্ত হবে ? আলাদা রাষ্ট্র হবে কাতালোনিয়া প্রদেশ ? বিখ্যাত ফুটবল ক্লাব বার্সেলোনার মালিকানা হারাতে চলেছে স্পেন ? তাহলে কি অবলুপ্তি ঘটতে চলেছে ‘এল ক্লাসিকো’র৷ তাই বাঙালি ফুটবলপ্রেমীদের প্রশ্ন তাহলে কি রাত জেগে ‘এল ক্লাসিকো’ দেখার দিন শেষ?

সেই জন্যই এখন মিলিয়ন ডলারের প্রশ্ন, রিয়াল মাদ্রিদ-বার্সেলোনার দ্বৈরথ কি তাহলে শেষ হতে চলেছে ? বিখাত এই দুই দলের ম্যাচ ফুটবল বিশ্বে এল ক্লাসিকো নামেই পরিচিত৷ কাতালোনিয়া যদি স্পেন থেকে আলাদা হয়ে যায় তাহলে এল ক্লাসিকো সেই উত্তেজনা হারাবে৷ সেক্ষেত্রে বার্সেলোনা ও এসপ্যানিওলের মতো ক্লাবগুলি ইংলিশ প্রিমিয়র লিগ কিংবা ইতালির সিরি এ-তে খেলতে পারে, বলছেন কাতালান ক্রীড়ামন্ত্রী৷ এক্ষেত্রে তিনি মোনাকো ও কার্ডিফ সিটির উদাহরণও টেনেছেন৷

অবশ্য বার্সেলোনার প্রেসিডেন্ট জোসেফ মারিয়া বার্থামিউ ধীরে চল নীতি নিয়েছেন৷ তিনি বলেছেন,‘ ভবিষ্যতে কি হবে জানি না৷ যদি কাতালোনিয়া স্বাধীনতা পায় সেক্ষেত্রে ব্যাপারটা বোর্ড অফ ডিরেক্টরদের সঙ্গে আলোচনা করা হবে৷ তাঁরা যা সিদ্ধান্ত নেবে সেটাই মেনে চলা হবে৷’

এদিকে কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার প্রশ্নে হওয়া গণভোট নিয়ে ইতিমধ্যেই পরিস্থিতি উত্তপ্ত৷  এর পরিপ্রেক্ষিতে রবিবার লাস পালমাস ম্যাচের পর সাংবাদিকদের সামনে কেঁদে ফেলেছিলেন ‘কাতালান’ জেরার্ড পিকে৷ অশ্রুভেজা চোখে তিনি বলেন, স্পেনের ফুটবল ফেডারেশন যদি চায় তাহলে জাতীয় দল থেকে সরে দাঁড়াবেন৷ আরও বলেছেন,‘পেশাদার ফুটবলার হিসেবে এটা আমার জীবনের সবচেয়ে খারাপ অভিজ্ঞতা ছিল৷ ম্যাচটা হবে কিনা সেটা ঠিক ছিল না৷ শেষ পর্যন্ত অনেক আলোচনার পর আমরা খেলতে নেমেছি৷ আমি কাতালান জনগণকে নিয়ে গর্বিত৷ আমি নিজেও কাতালান৷ তারা সবসময়ই আমাদের সমর্থন জুগিয়েছে৷ তবে যে ভাবে পুলিশের কাতালানদের উপর অত্যাচার করেছে সেটা আমি মেনে নিতে পারছি না৷ তাই এই ঘটনার পর নিজেকে আরও বেশি কাতালান মনে হচ্ছে৷’

বিবিসি জানাচ্ছে, কাতালোনিয়ার জনসংখ্যা ৭৫ লক্ষ। এই জনসংখ্যা স্পেনের মোট জনসংখ্যার ১৬ শতাংশ৷ স্পেনের উত্তর-পূর্বের এই প্রদেশ কার্যত স্প্যানিশ সংস্কৃতির কেন্দ্র বলেই পরিচিত৷ তাদের আছে নিজস্ব ভাষা৷ তারা আরও জানিয়েছে সরকারের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেই কাতালোনিয়ার জনগণ গনভোটে অংশ নিয়েছে৷ একে বিচ্ছিন্নতাবাদী তকমা দিয়েছে সরকার ও সেই প্রক্রিয়াকে অবৈধ বলে ভোট রুখতে বিশাল রক্ষীবাহিনী নামিয়েছিল স্পেন সরকার৷ ভোটদাতা ও পুলিশ-সেনার সংঘর্ষে জখম হয় অনেকে৷ এর প্রতিবাদে ডাকা বনধে অচল কাতালোনিয়া৷

স্পেন থেকে যে কোনও দিন বিচ্ছিন্ন হয়ে স্বাধীনতা ঘোষণা করতে পারে কাতালোনিয়া প্রদেশ সরকার৷ ফলে ১৯৩৬ পর স্পেন আবার গৃহযুদ্ধের দিকেই এগোচ্ছে।

সর্বশেষ সংবাদ