বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

`কুলাউড়ায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের, চাচার সাথে সংঘর্ষে প্রাণ গেলো ভাতিজার’



কুলাউড়া: কুলাউড়ায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের চাচার সাথে সংঘর্ষে প্রাণ গেলো ভাতিজার। বুধবার ১৭ এপ্রিল দুপুর দেড়টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের গুতগুতি গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষে তিন চাচা আহত হন ও গুরুতর আহত ভাতিজা দিলু মিয়া (৩৫) সিলেট ওসমানি মেডিকেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান।

 

এঘটনায় তিন চাচা এলাইছ মিয়া, মানিক মিয়া, তরী মিয়া এবং দিলু মিয়ার স্ত্রী মমতা বেগম আহত হয়েছেন।

কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইয়ারদৌস হাসান সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় মোবাইলে বলেন, দু’পক্ষের সংঘর্ষে ভাতিজা দিলু মিয়া নিহত হন। এঘটনায় আহত চাচা এলাইছ মিয়া, মানিক মিয়া, তরী মিয়া ও চাচাতো ভাই কামরুল মিয়াকে আটক করা হয়। তাঁদেরকে পুলিশী হেফাজতে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

নিহতের ভাগনা জুনেদ আহমদ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সাড়ে তিন শতক জমি নিয়ে নিজেদের বাড়ির উঠোনে বুধবার দুপুরে এলাইছ মিয়া, মানিক মিয়া ও তরী মিয়া এবং মানিক মিয়ার ছেলে কামরুল মিয়ার সাথে দিলু মিয়ার কথাকাটাকাটির শুরু হয়। এক পর্যায়ে তাঁদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এসময় ভাতিজা দিলু মিয়ার পেটে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করলে গুরুতর আহতবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন স্থানীয় ও স্বজনরা। দিলুর পেটের ভূড়িতে গুরুতর জখম হওয়ায় প্রচুর রক্তক্ষরণ শুরু হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে সিলেটে প্রেরণ করেন। সিলেট যাওয়ার সময় বিকেল ৫টার দিকে পথিমধ্যে তাঁর মৃত্যু হয়।

ভাগনা জুনেদ আহমদ সন্ধ্যা ৭টার দিকে মোবাইলে বলেন, বর্তমানে দিলু মিয়ার লাশ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে লাশ কুলাউড়ায় নিয়ে আসা হবে।