সোমবার, ২০ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আফিয়া সিদ্দিকীর ফেরা নিয়ে সরকারের দাবি প্রত্যাখ্যান



পাকিস্তান:পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ড. মোহাম্মাদ ফয়সাল বলেছেন, তিনি মনে করেন, ড. আফিয়া সিদ্দিকী পাকিস্তানে ফিরতে চান না। কিন্তু সে দাবি প্রত্যাখ্যান করেছেন তার বোন ফাউজিয়া।

ইন্ডিপেন্ডেন্টের উর্দু ভার্সনকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, ভবিষ্যতে যদি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয় তাহলে তারা ড. আফিয়া সিদ্দিকী ও ড. শাকীল আফ্রিদিসহ বন্দি বিনিময়ের বিষয় নিয়ে কথা বলতে পারেন।

প্রসঙ্গত, মার্কিন সেনাকে হত্যার প্রচেষ্টা ও কথিত অন্যান্য অভিযোগে ২০১০ সালে ড. আফিয়ার বিরুদ্ধে সাতটি মামলা দেয় আমেরিকা। পরে তাকে ৮৬ বছরের সাজা দেওয়া হয়। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের ফেডারেল মেডিকেল সেন্টারে বন্দি আছেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মুসলিম স্নায়ুবিজ্ঞানী ড. আফিয়া।

ড. ফয়সাল জানান, গত বছর ড. আফিয়ার বোন ফাউজিয়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশির সঙ্গে দেখা করেন এবং বিষয়টি নিয়ে আমেরিকার সঙ্গে আলোচনার অনুরোধ করেন।

সামা টিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পরবর্তীতে পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী টুইটারে বলেন, ড. আফিয়াকে পাকিস্তানের ফেরানোর প্রক্রিয়া নিয়ে তারা কাজ করছেন। এমনকি মন্ত্রীর নির্দেশে হস্টনের কাউন্সেল জেনারেল আয়েশা ফারুকী আফিয়া সিদ্দিকীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

কিন্তু ইন্ডিপেন্ডেন্টের উর্দু ভার্সনকে ফাউজিয়া বলেন, সরকারের দাবি সঠিক নয়, ড. সিদ্দিকী পাকিস্তানে ফিরতে চান।

ফাউজিয়া বলেন, এক সময় মনে হতো ড. সিদ্দিকী যেকোনো সময় পাকিস্তানে ফিরতে পারেন, কিন্তু তা হয়নি। সরকার আশ্বাস দিয়েছিল, আমেরিকার সঙ্গে তাদের আলোচনা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে এবং জানুয়ারি কিংবা মার্চ নাগাদ সুসংবাদ পাওয়া যেতে পারে। কিন্তু সেটা হয়নি এবং এখন সব কিছু নীরব।

ফাউজিয়া আরো বলেন, তিনি তার বোনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন এবং তিনি (ড. সিদ্দিকী) জানিয়েছেন যে, বন্দিদশা থেকে মুক্তি পেতে তিনি যেকোনো ডকুমেন্টে সই করতে প্রস্তুত রয়েছেন।