সোমবার, ২০ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

এত নাটক, জবাব নেই: কাদের সিদ্দিকী



নিউজ সর্বশেষ২৪রিপোর্ট:  কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর আব্দুল কাদের সিদ্দিকী বলেছেন, নির্বাচন পরবর্তী জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে এত নাটক হচ্ছে, তা দেখে মানুষ বিভ্রান্ত। তারা প্রশ্ন করে, আমরা কোনো জবাব দিতে পারি না।

বৃহস্পতিবার মতিঝিলে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

এ সময় কাদের সিদ্দিকী ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ছাড়ার জন্য আগামী ৮ জুন পর্যন্ত সময়সীমা বেঁধে দেন।

তিনি বলেন, ‘৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশে নির্বাচনের নামে জঘণ্য নাটক হয়েছে। বাংলাদেশ নয়, পৃথিবীর কোথাও এমন নাটকের নজির নেই। কিন্তু, আমরা এই নির্বাচন নাটককেও হার মানিয়েছি।’

কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘নির্বাচনের পর আমাদের জোট ঐক্যফ্রন্ট প্রহসনের নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করল। আমরা মনে করি, রাজনৈতিক স্বার্থে সেটি ছিল যথার্থ সিদ্ধান্ত। কিন্তু, এরপর থেকেই একটার পর একটা নাটক মঞ্চস্থ হচ্ছে। প্রথমে গণফোরামের সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ শপথ নিয়ে সংসদে গেলেন। ক্ষোভ দেখিয়ে দল তাকে বহিষ্কার করল। এরপর মোকাব্বির খান শপথ নিলেন। ড. কামাল হোসেন তাকে ‘গেট আউট’ বলে তাড়িয়ে দিলেন। পরে দেখলাম গণফোরামের বিশেষ কাউন্সিলে তিনি কামালের পাশে বসে আছেন। এসব দেখে মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে। তারা প্রশ্ন করে, আমরা উত্তর দিতে পারি না।’

তিনি বলেন, ‘একইভাবে প্রথম বিএনপির একজন শপথ নিলেন। তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হলো। পরে চারজন শপথ নিলেন, তাদের বিএনপি স্বাগত জানালো। অথচ দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শপথ নিলেন না। বিএনপি এবং ঐক্যফ্রন্টের এসব নাটকে মানুষ বিরক্ত, বিভ্রান্ত। বিভিন্ন জায়গায় গেলে, তারা প্রশ্ন করে কিসের আলামত? আমার কাছে জবাব নেই, লজ্জিত হই।’

এক প্রশ্নের জবাবে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পরবর্তী পর্যায়ে সঠিকভাবে পরিচালনা করা সম্ভব হয়নি। যে নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করলাম, সেই সংসদেই সাতজন শপথ নিলেন, জোটের কারও সঙ্গে আলোচনা করা হলো না। কেন ঐক্যফ্রন্ট পরিচালনায় এত দুর্বলতা? কেন সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত নেয়া যাচ্ছে না— এসব জোটের শীর্ষনেতাদের কাছে জানতে চেয়েছি। ৩০ এপ্রিল শাহবাগের গণজমায়েত কেন বাতিল করা হলো, তাও জানতে চেয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘আগামী ৮ জুনের মধ্যে তারা এসব বিষয়ে সমাধান না দিলে, পরের দিন থেকে আমি আর ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে নেই। এই জোট থেকে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগকে প্রত্যাহার করে নেব।’

সংবাদ সম্মেলনে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তালুকদারসহ দলের শীর্ষনেতারা উপস্থিত ছিলেন।