সোমবার, ২০ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

৮০০ মুসলিমকে ইফতার করাচ্ছেন এই খ্রিস্টান



নিউজ সর্বশেষ২৪রিপোর্ট: সাজি ছেরিয়ান। ২০০৩ সাল থেকে আছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতে। ৪৯ বছর বয়সী এই ভারতীয় সফল ব্যবসায়ী।

দেশটির গালফ নিউজ খ্রিস্টান ধর্মের অনুসারি সাজিকে নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে উঠে এসেছে, তিনি কিভাবে মুসলিম শ্রমিকবান্ধব হলেন এবং তাদের জন্য কি কি করেছেন?

সাজি সংযুক্ত আরব আমিরাতে মুসলিম শ্রমিকদের জন্য একটি মসজিদ নির্মাণ করেছেন। এবারের রমজানে তিনি সেখানে ৮০০ মুসলিমকে নিয়মিত ইফতার করাচ্ছেন।

সাজি এসেছেন ভারতের কেরালার কাইয়ামকুলাম থেকে। গত বছর তিনি আমিরাতের ফুজাইরাহতে ‘মরিয়ম উম্ম এশা’ নামের মসজিদটি নির্মাণ করেন।

মসজিদের সঙ্গে শ্রমিকদের বসবাসেরও ব্যবস্থা রয়েছে। সেখানে ৫৩টি প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকরা ভাড়ায় বাস করছেন।

অথচ মসজিদ নির্মাণের আগে সাজি দেখতে পান— শ্রমিকেরা তাদের রোজগারের একটি বড় অংশ ট্যাক্সি ভাড়ায় ব্যয় করতেন। কারণ, তারা পবিত্র রমজান এলে ট্যাক্সিতে করে পার্শ্ববর্তী একটি মসজিদে গিয়ে নামায পড়ে আসতেন।

এবার ৭ মে রমজান শুরু হয়েছে। শ্রমিকদের আর আগের মতো বাড়তি অর্থ খরচ হচ্ছে না।

সাজি ২০০৩ সালে মাত্র ১০০ দিরহাম নিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতে আসেন। এরপর ব্যবসা শুরু করেন। ১৬ বছরের ব্যবধানে তিনি এখন ৮০০ মানুষের ইফতার করাচ্ছেন। যাদের মধ্যে শ্রমিক ছাড়াও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সিনিয়র চাকরিজীবীরা রয়েছেন। তারা সবাই শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত মসজিদ কমপ্লেক্সে ইফতারে শরিক হচ্ছেন।

সাজি গালফ নিউজকে বলেন, ‘গতবার ১৭ রমজানের রাতে মসজিদ চালু হয়। সেবার মাত্র কয়েকটি দিন মুসল্লিদের আমি ইফতার করাতে পেরেছিলাম। এবার শুরু থেকেই প্রত্যেক দিন তাদের ইফতার করাতে পারছি।’

তিনি বলেন, ‘ইফতারের মেন্যুতে খেঁজুর, তাজা ফলের জুস, স্নাকস, জুস, পানি ও বিরানি রয়েছে। প্রত্যেক দিন যাতে একই রকম না হয়, সেজন্য বিভিন্ন রকম বিরিয়ানি রাখা হয়। আমি চাই না, রোজাদাররা বিরক্ত না হন।’

৬৩ বছর বয়সী পাকিস্তানি বাসচালক আব্দুল কাইয়ুম। তিনি বুধবার এই মসজিদে ইফতার করেন। কাইয়ুম এই খ্রিস্টানের উদ্যোগের প্রশংসা করেন, ‘সাজির মতো মানুষই বিশ্বের বেশি দরকার। তার মতো মানুষ না থাকলে, পৃথিবীর প্রয়োজনীয়তা থাকবে না, ধ্বংস হয়ে যাবে। আমরা তার জন্য দোয়া করি। আল্লাহ তার কর্মের প্রতিদান দিবেন।’

একটি কোম্পানির ভারতীয় সহকারী ব্যবস্থাপক আব্দুল ওয়াহিদ জানান, ৫০টির বেশি প্রতিষ্ঠানের কর্মজীবীরা এই এলাকায় বসবাস করেন। সিনিয়র চাকরিজীবী এবং শ্রমিকরা পৃথক ভবনে বাস করলেও সবাই ইফতারে এসে এক হয়ে যান। একসঙ্গে ইফতার শেষে তারা নামায আদায় করেন।

মসজিদটি আল হায়াল শিল্পাঞ্চলের ইস্ট ভ্যালি রিয়েল এস্টেট কমপ্লেক্সে অবস্থিত।এখানে একই সঙ্গে ২৫০ মুসল্লি নামায আদায় করতে পারেন। এটির পরিধি বাড়ানো হচ্ছে, যাতে একসঙ্গে ৭০০ মুসল্লি নামায আদায় করতে পারেন।